ই-পেপার | বৃহস্পতিবার , ১৩ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

সিরাজদিখানে সম্পত্তি লিখে না দেওয়ায় পুত্রবধূর হাতে নির্যাতিত হলেন শশুর।

সিরাজদিখান মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধিঃ

মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখানে সম্পত্তি লিখে না দেওয়াকে কেন্দ্র করে রোকন উদ্দিন বেপারী নামে ৮২ বছর বয়সী এক বৃদ্ধকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে। শুক্রবার সকাল অনুমান সাড়ে ৯ টার দিকে উপজেলার বাসাইল ইউনিয়নের পাথরঘাটা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। সম্পত্তি লিখে না দেওয়ায় পুত্রবধূ কর্তৃক মারধরের অভিযোগ তোলেন ভুক্তভোগী বৃদ্ধ শ্বশুর রোকন উদ্দিন বেপারী। অভিযুক্ত গৃহবধূ পাথরঘাটা গ্রামের ফুল মিয়া বেপারীর মেয়ে ও একই গ্রামের প্রবাসী শিপনের স্ত্রী লক্ষী (৪১)। এ ঘটনায় ওই বৃদ্ধ থানা পুলিশের দারস্থ হলে শারীরিক আঘাতের জখম গুরুত্বর হওয়ায় পুলিশ তাকে প্রথমে চিকিৎসার জন্য পাঠায়। বর্তমানে তিনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। স্থানীয়রা জানায়, উপজেলার পাথরঘাটা গ্রামের বাসিন্দা রোকন উদ্দিন বেপারীর বড় ছেলে শিপন ও তার স্ত্রী লক্ষী তাদের নামে সম্পত্তি লিখে দেওয়ার জন্য চাপ প্রয়োগ করে আসছিলো। সম্পত্তি লিখে না দেওয়ায় এর আগেও রোকন উদ্দিন বেপারী তার বড় ছেলে শিপনের হাতে মারধরের শিকার হন। সে সময় স্থানীয় ভাবে বিচার শালিসের মাধ্যমে মারধরের ঘটনার আপোষ মিমাংসা করা হয়। শুক্রবার সকালে পুত্রবধূ লক্ষী তার শ্বশুর রোকন উদ্দিন বেপারীকে সম্পত্তি ছেলের নামে লিখে দেওয়ার জন্য চাপ প্রয়োগ করে। রোকন উদ্দিন বেপারী তার ছেলেকে সম্পত্তি লিখে দিতে অসম্মতি জানালে পুত্রবধূ লক্ষী বাঁশের লাঠি দিয়ে শ্বশুর রোকন উদ্দিন বেপারীকে এলোপাথারী ভাবে মারধর করে। এতে তিনি মুখের ডান পাশে কাটা রক্তাক্ত যখমসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম প্রাপ্ত হন। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দীর্ঘদিন যাবৎ সম্পত্তির দাবী করে আসছিলো বড় ছেলে শিপন ও তার বউ লক্ষী। সম্পত্তি লিখে না দেওয়ার জের ধরে সকাল সাড়ে ৯ টার দিকে শশুর যখন বাড়িতে কাজ করছিলো তখন সম্পত্তি নিয়ে তাদের সাথে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে তার ছেলে বউ লক্ষী বাঁশ দিয়ে রোকন উদ্দীনকে এলোপাতাড়ি ভাবে মারধর করে। মারধরের কারণে সে মাটিতে পড়ে গিয়ে জ্ঞান হারায়। পরে স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে। অভিযুক্ত পুত্রবধূ লক্ষী মারধরের অভিযোগ অস্বীকার করে মুঠোফোনে বলেন, আমি তাকে মারধর করি নাই। সে পরে গিয়ে আঘাত পাইছে। এ নিয়ে অনেকবার বিচার শালিস হইছে। আমার শ্বশুরের দ্বিতীয় স্ত্রী ছেলেদের বঞ্চিত করে সম্পত্তি একাই ভোগ করার জন্য ঝামেলা লাগিয়ে রাখতেছে। ভুক্তভোগী রোকন উদ্দিন বেপারী বলেন, এর আগেও সম্মত্তি লিখে দেই না বলে তারা আমাকে মারধর করেছে। আজকেও আমাকে আমার ছেলের বউ মারধর করলো। আমি বৃদ্ধ বয়সে আর কত মার খাবো! আমি কিছুটা সুস্থ্য হয়ে এবার আইনের আশ্রয় নিবো। অনেক সহ্য করেছি আর না।