ই-পেপার | মঙ্গলবার , ১৮ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

ট্রেনের ধাক্কায় হাতির মৃত্যু : কাল বন ভবনের সামনে অবস্থান

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজধানী উত্তরার আবদুল্লাহপুরে ট্রেনের ধাক্কায় একটি হাতির মৃত্যু হয়েছে। বন অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ময়নাতদন্ত করে দাফন করা হবে হাতিটিকে।

এদিকে, উত্তরায় হাতির মৃত্যুতে সরকারের বন বিভাগের অবহেলাকে দায়ী করেছে প্রাণী অধিকার ও সংরক্ষণবাদী সংগঠন পিপল ফর অ্যানিমেল ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশন। হাতিকে নির্যাতন, হাতি দিয়ে চাঁদাবাজি, হাতির যথেচ্ছা ব্যবহার বন্ধ করতে আগামীকাল বৃহস্পতিবার(১৮ মে) সকাল ১১ টায় আমি বন ভবনে যাবেন সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান স্থপতি রাকিবুল হক এমিল। বন বিভাগের বিরুদ্ধে মামলা করার উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে বলে জানান তিনি।

 

রেলওয়ে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, বুধবার(১৭ মে) দুপুরে কোটবাড়ি রেলগেট এলাকায় ঢাকা থেকে আসা একটি ট্রেন রেল লাইনের পাশে থাকা দুটি হাতির মধ্যে একটিকে ধাক্কা দেয়। এতে হাতিটি মারা যায়।

 

ট্রেনের ধাক্কায় হাতির মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে ঢাকা রেলওয়ে থানার ওসি ফেরদৌস আহমেদ বিশ্বাস বলেন, ঢাকা থেকে চট্টগ্রামগামী চট্টলা এক্সপ্রেস হাতিটিকে ধাক্কা দেয়। পরে হাতিটিকে একটি ক্রেন দিয়ে সরিয়ে নেওয়া হলে ট্রেনটি ওই এলাকা ছেড়ে যায়।

বিমানবন্দর রেলওয়ে স্টেশন পুলিশ ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. আকবর আলী জানান, দুর্ঘটনার পর মাহুত অন্য হাতিটি নিয়ে পালিয়ে যায়। মৃত হাতিটি বনবিভাগের কর্মকর্তাদের কাছে হাস্তান্তর করা হবে।

 

এ ব্যাপারে বন অধিদপ্তরের সংরক্ষক (বন্যপ্রাণী ও প্রকৃতি সংরক্ষণ) ইমরান আহমেদ বলেন, ‘হাতির মালিককে এখনো শনাক্ত করা যায়নি। আমরা ময়নাতদন্ত করব এবং সম্ভব হলে ঘটনাস্থলেই প্রাণীটিকে দাফন করব।’

 

এদিকে, এ ঘটনার যথাযথ তদন্ত ও দোষী ব্যক্তিদের শাস্তির দাবি করে বৃহস্পতিবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে সরকারি বনবিভাগের প্রধান দপ্তর বন ভবনে প্রতিবাদী অবস্থান কর্মসূচী ঘোষণা করেছে প্রাণী অধিকার ও সংরক্ষণবাদী সংগঠন পিপল ফর অ্যানিমেল ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশন। সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান স্থপতি রাকিবুল হক এমিল সি .এন.এন.বাংলা২৪কে বলেন, ‘আমরা সংগঠনের পক্ষ থেকে আগামীকাল আগারগাঁও বন ভবনে যাবো। আর নয়… এই নির্যাতন, চাঁদাবাজি, হাতিকে দিয়ে যথেচ্ছা ব্যবহার বন্ধ করতে হবে। সকাল ১১ টায় বন ভবনে যাবো প্রধান বন সংরক্ষকের কাছে সরাসরি প্রশ্ন রাখতে, তারা ব্যবস্থা নেবে কি নেবে না?’

‘এটা দুর্ঘটনা নয়, এটা অবহেলা। অবহেলাজনিত হত্যা।

এর দায় বন বিভাগ এবং হাতির মালিকের। এতো দিন ধরে হাতি দিয়ে চাঁদাবাজি চলছে! অথচ বন বিভাগ নির্বিকার। পুরো সিন্ডিকেটের হাতে ৯৫টা হাতি লাইসেন্স করা। এটা হালনাগাদও করছে না, তালিকা প্রকাশও করে না বনবিভাগ। তাদের নির্বিকার ভূমিকার কারণে ঢাকার মতো শহরে হাতি দিয়ে চাঁদাবাজি চলে, এরমধ্যে একটি হাতি মারা গেলো।’

 

এইচ .এম.কাদের সি .এন.এন.বাংলা২৪